মদ খাওয়া হারাম,এটি বন্ধ করতে হলে প্রশাসনকে আন্তরিক হতে হবে- সভায় বক্তারা

শাহাদাত হোসেন রাউজান প্রতিনিধি ঃ
মাদক ছেড়ে বই পড়ি, ফুলের মতো জীবন গড়ি’ স্লোগানটিকে সামনে রেখে রাউজান উপজেলা
প্রশাসনের উদ্যোগে পালিত হলো মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ জুন) সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে এক বন্যার্ঢ্য র্যালি বের করে উপজেলার পৌর সদর প্রদক্ষীণ করে শেষে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে এসে আলোচনা সভা মিলিত হয়। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম হোসেন রেজার সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ.কে.এম. এহেছানুল হায়দর চৌধুরী বাবুল। সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সাজু পালিত ও রাউজান বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যাপিতা শর্বরী দে”র সঞ্চালনায় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেপায়েত উল্লাহ,উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও পৌর প্যানেল মেয়র-২ জমির উদ্দিন পারভেজ, রাউজান প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শফিউল আলাম, নোয়াপাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ কফিল উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান দিদারুল আলম, মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম, আব্বাস উদ্দিন আহমেদ, সরোয়ার্দি সিকদার, নুরুল আবচার বাশি, বি এম জসিম উদ্দিন হিরু, উপজেলা জামে মসজিদের ইমাম আব্দুল্লাহ আল মতিন, অগ্রসর মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ সুমেনন্দ্র মহাথের, , শিক্ষক মকুল ভট্টচার্য, পৌর কাউন্সিলর জেবুন্নেছা, শিক্ষার্থী শান্ত বিশ্বাস,সুপ্রিয় বড়ুয়া । র্যালীতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) জোনায়েদ কবির সোহাগ, পৌর প্যানেল মেয়র বশির উদ্দিন, রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার নুর নবী, চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরীসহ উপজেলা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমুহের শিক্ষকবৃন্দ, গণমাধ্যম কর্মী, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃত্ববৃন্দরা। সভায় বক্তারা বলেন – মাদক ইয়াব সেবন করে সামাজের ছেলে- মেয়েরা ধ্বংস দিকে নিয়ে যাচ্ছে। সমাজ থেকে মাদক, ইয়াবা মুক্ত করতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে । মাদক ও ইয়াবা ব্যবসায়ী যেই হোক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। প্রতিটি ধর্মের মধ্যে মাদকের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চললে সামাজ থেকে মাদকমুক্ত গড়া সম্ভব। উপজেলা চেয়ারম্যান প্রধান অতিথির বক্তব্য বলেন – মাদক, ইয়াবা, ফেনসেডিল সহ নেশাজাতীয় দ্রব্যের সাথে জড়িতদের ছাড় দেয়া হবে না। মদ খাওয়া হারাম,এটি বন্ধ করতে হলে প্রশাসনকে আন্তরিক হতে হবে। রাউজানে কেউ মদ ইয়াবা বিক্রি ও খেতে পারবেনা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সভাপতির বক্তব্যে বলেন, রাউজানে মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক ব্যবসায়ীদের আশ্রয় ও প্রশ্রয়দাতাদের তালিকা করা হয়েছে। আগামী পহেলা জুলাই হতে রাউজানে একসাথে পাচঁজন ম্যজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে পাচঁটি টিম একসঙ্গে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক পাচারকারীদের বিরোদ্ধে অভিযান চালানো হবে । কেউ মাদকের সাথে জড়িতদের সুপারিশ করলে তাকেও গ্রেফতার করা হবে। সভায় শেষে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমীর পরিচালনায় মাদক বিরোধী সংগীত ও নৃত্য পরিবেশন ও মাদক নিয়ে রচনা প্রতিযোগীতা করায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *