গাজীপুরে নির্বাচন নিয়ে আজ শুনানি, আপিলে যাবে ইসিও

সূর্যোদয় ডেস্ক: গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে হাই কোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আপিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এদিকে গাজীপুরের ভোট স্থগিতের বিষয়ে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুই মেয়র প্রার্থীর আপিল আবেদনের শুনানি আজ অনুষ্ঠিত হবে।

ভোট স্থগিতের দুই দিন পর গতকাল ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, ‘গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আপিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। এ জন্য একজন আইন পরামর্শক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।’
গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের ইসির এ সিদ্ধান্তের কথা জানান তিনি।

নির্বাচন কমিশন সচিব বলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের সব ‘ক্লিয়ারেন্স’ পেয়েই গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছিল। এর পরও স্থগিত হয়ে যাওয়াটা দুঃখজনক। ভোটের তারিখের মাত্র ৯ দিন আগে সীমানা জটিলতা নিয়ে এক রিট আবেদনে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করেন আদালত।
নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানান, যে বিষয়টি (ছয়টি মৌজার সীমানা) নিয়ে আদালতের স্থগিতাদেশ এসেছে, তা আগেই নিষ্পত্তি হয়েছে বলে স্থানীয় সরকার বিভাগ জানিয়েছে। তারা বলেছে, কোনো আইনি জটিলতা নেই, মামলা নেই। সবকিছু নিশ্চিত হয়েই তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সংবিধানের ১২৫(গ) অনুচ্ছেদে আছে, ‘কোন আদালত, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হইয়াছে এইরূপ কোন নির্বাচনের বিষয়ে, নির্বাচন কমিশনকে যুক্তিসঙ্গত নোটিস ও শুনানির সুযোগ প্রদান না করিয়া, অন্তর্বর্তী বা অন্য কোনোরূপে কোনো আদেশ বা নির্দেশ প্রদান করিবেন না।’
হেলালুদ্দীন বলেন, ‘?সংবিধানের ১২৫(গ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী আমরা পর্যাপ্ত সময় পওয়ার কথা। কিন্তু (শুনানির জন্য) আমাদের যথেষ্ট সময় দেওয়া হয়নি। আমরা নোটিশ পাইনি।’ আপিলে আইনি লড়াইয়ে এ বিষয়গুলো তুলে ধরা হবে বলে জানান তিনি।
সচিব জানান, রবিবার আদালতের নির্দেশনা পেয়েই মৌখিকভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তাকে ভোটের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়। আদালতের আদেশের সারসংক্ষেপ সোমবার বিকালে হাতে পেয়েছে কমিশন। পরে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম বন্ধের লিখিত নির্দেশ রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়।

ভোট নিয়ে শুনানি নিয়মিত বেঞ্চে : গাজীপুর সিটি নির্বাচনে হাই কোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুই মেয়র প্রার্থীর আবেদন শুনানির জন্য আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠানো হয়েছে। চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী গতকাল এ আদেশ দেন। আপিল বিভাগে এ বিষয়ে আজ শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। হাই কোর্টের আদেশের বিষয়ে চেম্বার বিচারপতি নতুন করে কোনো আদেশ না দেওয়ায় গাজীপুর সিটি নির্বাচন স্থগিতই থাকছে বলে আইনজীবীরা জানিয়েছেন।

নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী ১৫ মে গাজীপুর সিটি করপোরেশনে নির্বাচন হওয়ার কথা। সে অনুযায়ী প্রার্থীরাও প্রচারে ব্যস্ত ছিলেন। কিন্তু সাভারের শিমুলিয়া ইউনিয়নের ছয়টি মৌজা গাজীপুর সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভুক্তির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা এ বি এম আজহারুল ইসলাম সুরুজ একটি রিট আবেদন করলে হাই কোর্ট ৬ মে এ নির্বাচন স্থগিত করেন


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *